উদ্যোগে সফল হতে যে ৭টি বই অবশ্যই পড়া উচিত

উদ্যোগে সফলতার জন্য  পড়তে হবে বই । বই মানুষের সবচেয়ে ভালো বন্ধু। জীবনের যা কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন, তার অধিকাংশেরই উত্তর পাওয়া যাবে বইয়ে। অনেকেই একটি কথা শুনে থাকবেন - আপনি আজ থেকে ৫ বছর পর কোথায় থাকবেন,কি করবেন তা নির্ভর করে আপনি আজকে কি বই পড়ছেন তার উপর। অর্থাৎ,বই মূলত আপনার ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করছে। তাই বই পড়ার অভ্যাস থাকুক আর না থাকুক সবাইকে স্বীকার করতেই হবে যে- নিজ চরিত্র গঠনে ও জীবনে সফলতা অর্জনের ক্ষেত্রে বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই।  বই পড়া প্রত্যেকের জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হওয়া উচিৎ। ছাত্রজীবন থেকেই পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয়ে পড়তে হবে যাতে সার্বিক জ্ঞান বাড়ে। বই পড়ার ধারা কর্ম জীবনেও অব্যাহত থাকলে ব্যক্তিজীবনে ও পেশাগত জীবনে সফলতা কেউ আটকে রাখতে পারবে না। তাছাড়া নৈতিক ও চারিত্রিক গুণাবলির উন্নতি তো আছেই।এখন প্রশ্ন উঠতে পারে যে- কি ধরনের বই পড়ব? বা কি ধরনের বই আপনাকে আপনার লক্ষ্যে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে?  একজন উদ্যোক্তা হওয়ার লক্ষ্য যদি আপনার থাকে তবে আপনাকে উদ্যোগ গ্রহণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো সম্বন্ধে লেখা বইগুলো পড়তে হবে। পড়তে হবে বিভিন্ন সফল ব্যক্তিত্বের জীবনকাহিনী। জানতে হবে এই জীবন ধারার বিস্তারিত। তবেই আপনি ধীরে ধীরে নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করে তুলতে পারবেন একজন ভবিষ্যৎ সফল উদ্যোক্তা হিসেবে।তাই আপনার জন্য উপযুক্ত কিছু বইয়ের তালিকা দেখে নেয়া যাক যে বইগুলো আপনাকে সাহায্য করবে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে - ১. দ্যা লীন স্টার্টআপ - এরিক রাইস এর লেখা এই বইটি সকল আশাবাদী উদ্যোক্তার জন্য পড়া তো অবশ্যই জরুরি, অন্যদের সংগ্রহে থাকলেও এই বই আপনাকে সফলতার দিকে ধাবিত করবে। এই বইয়ে আপনাকে 'জাস্ট ডু ইট' প্রক্রিয়ায় কাজ করা সম্বন্ধে বিস্তারিত বলা হয়েছে যা গতবাধা পেশাগত জীবনের উন্নতির মানসিকতা থেকে আলাদা। উদ্যোগ গ্রহণ করার ব্যপারে যে দুটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সেগুলো হলো - i) আপনার উদ্যোগ এর পেছনে ছোটার মতো যোগ্য উদ্যোগ এটি কিনা।ii) আপনার উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করার জন্য প্রোয়জনীয় জনবল বা সহকর্মী / সহউদ্যোগী আছে কিনা। এই দুটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে অনেক আলোচনা রয়েছে এই বইয়ে। সাধারণ ব্যবসায়িক প্রক্রিয়া থেকে বের হয়ে অন্যরকম পদ্ধতি অবলম্বন করার কথা এই বইয়ে বলা হয়েছে। ২. দ্য নন টেকনিক্যাল ফাউন্ডার - ধরুন আপনার কাছে অসাধারণ একটি সফটওয়্যার বা ভিডিও গেম এর আইডিয়া আছে। কিন্তু আপনি কোডিং বা প্রোগ্রামিং জানেন না। কোড না জানার পরেও আপনি কিভাবে এই আইডিয়াকে বাস্তবায়ন করবেন, ফলপ্রসূ করবেন সেই পথই বাতলে দেয়া হয়েছে জশ ম্যাকডোনাল্ড এর লেখা এই বইটিতে। এই বইটির সবচেয়ে কৌতূহল উদ্দীপক বিষয়টি হলো- বইটিতে রয়েছে ২০ জনেরও বেশি টেকনিক্যাল খাতের সফল উদ্যোক্তার সাক্ষাৎকার যারা পরামর্শ দিয়েছেন - একজন কোডিং না জেনেও কিভাবে এই খাতে সফল হতে পারেন সেই বিষয়ে। তারা সোশাল মিডিয়াতে একটি কাস্টমার ভিত্তি তৈরির কথাও এই বইতে বলেছেন। ৩. ক্রাশিং ইট - অনেকেই ভেবে থাকেন - একজন উদ্যোক্তা হিসেবে যদি আপনি ঘরমুখো হন, মানুষের সাথে মেলামেশা করতে পারা এবং নেটওয়ার্ক তৈরি করতে পারার গুণ যদি আপনার না থাকে তবে উদ্যোগ বাস্তবায়ন আপনার জন্য অনেকটাই কঠিন হয়ে পরবে। কিন্তু একথাটি কোনভাবেই সঠিক নয় যে একজন উদ্যোক্তা হিসেবে সফলতার মুখ দেখতে হলে আপনাকে একজন মিশুক, নেটওয়ার্ক তৈরিতে সাচ্ছন্দ্য হয়ে জন্মাতে হবে। আর এই যুক্তিটিই গ্যারি ভ্যাইনারচাক তার লেখা বই ' ক্রাশিং ইট' এ ব্যক্ত করেছেন। লেখক তার এই বইয়ে ব্যবসা বা উদ্যোগের খাতিরে কি করে নিজ গন্ডি থেকে বের হয়ে আসা যায় সে কথাও বলেছেন।এই বইয়ের গল্পগুলো আপনাকে এই বিষয়েই শিক্ষিত করে তুলবে যাতে ঘরকুনো হয়েও আপনি একজন সফল উদ্যোক্তা হতে পারবেন। ৪.মেক ট্রাবল- যখন কোনো নতুন উদ্যোক্তা তার উদ্যোগের পেছনে ছোটা শুরু করেন এবং লক্ষ্যে পৌঁছানোর আপ্রাণ চেষ্টা করতে শুরু করেন তবে নিজেকে ও নিজের ক্ষমতাকে প্রশ্ন করতে শুরু করা খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। অনেক ক্ষেত্রে নিজেকে অন্যদের থেকে অনেক বেশি আলাদা এবং একা মনে হতে পারে। কিন্তু এই পথে চলতে হলে নিজের ওপর বিশ্বাস রাখাটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জন ওয়াটারস্ এই ব্যপার নিয়েই তার মতামত ও কিছু পরামর্শ বইটিতে উল্লেখ করেছেন। কিভাবে লক্ষ্যকে স্থির রেখে নিজের ওপর শতভাগ আস্থা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার মূল মন্ত্র রয়েছে এই বইটিতে। ৫. জিরো টু ওয়ান - ফেসবুকে সর্বপ্রথম মোটা অংকের অর্থ বিনিয়োগকারী পিটার থেইল এই অসাধারণ বইটি লেখেছেন। যদি আপনি এমন কোনো উদ্যোক্তা হয়ে থাকেন যে সম্পূর্ণ নতুন ধরনের উদ্যোগ নিয়েছেন বা এমন কিছু করতে চান যা কোনো দিক দিয়ে পুরোনো উদ্যোগের নতুন রূপ নয়, বরং এক নতুন ধারার সূচনাকারী, তবে এই বইটি আপনার জন্যই লেখা হয়েছে। এই বইটিতে আপনার উদ্যোগের কিছু বৈশিষ্ট্য আছে কিনা - তা চেখে দেখার কথা বলা হয়েছে, এই বৈশিষ্ট্যগুলো একটি নতুন উদ্যোগের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ৬.নাও হোয়াট - যারা নিজদেরকে চাপ দিচ্ছেন নিজের আগ্রহ, কৌতুহল, শখ খুঁজে বের করার জন্য এবং সেই অনুযায়ী উদ্যোগ গ্রহণ করে সামনে আগানোর জন্য কিন্তু বারবার তা খুঁজে পেতে ব্যর্থ হচ্ছেন তাদেরকে লক্ষ্য করেই এই বইটি লেখা হয়েছে। এই বইয়ে অনেক সফল উদ্যোক্তার সাক্ষাৎকার সংকলিত করেছেন লেখক আ্যরি কিং যেই সাক্ষাৎকারগুলোর মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন যে- সফলতা বলে কয়ে আসেনা বা যেভাবে আশা করবেন প্রায়ই সেভাবে আসে না আর এজন্য দুশ্চিন্তা করার বা হাল ছেড়ে দেয়ার কোনো কারণ নেই। সময়মত ঠিকই সফলতার স্বাদ আপনি পাবেন।

৭,রিচ ড্যাড পুওর ড্যাড-এই বইয়ের ভিন্নধর্মী কিছু উপদেশ ব্যবসা এবং অর্থ বিষয়ে অন্যভাবে ভাবতে শেখাবে।এখানে ধনী বাবা এবং গরীব বাবার দৃষ্টিভংগী আলাদাভাবে তুলে ধরা হয়েছে।গরীবরা অর্থের জন্য কাজ করে,আর ধনীরা অর্থকে নিজের জন্য কাজ করায়।ধনী হবার জন্য প্রচুর আয় করতে হবে এই ধারনা ভুল প্রমান করবে।সম্পদ ও আয়ের সুস্পষ্ট বর্ণনা পাবেন।অর্থের বিষয়ে পূর্ণ শিক্ষা অর্জনে এই বইটি অবশ্যই পড়া উচিত। এই বইগুলো আপনার উদ্যোক্তা হওয়ার পথের যাত্রা অনেক মসৃণ ও সহজ করে দিবে। তাই আর দেরি না করে আজই এই বইগুলো সংগ্রহ করে আপনার বুক শেলফে রাখুন এবং একটা একটা করে মন দিয়ে পড়ে শেষ করুন।


133 views0 comments