top of page

ব্যবসায়ের প্রথম সূচনা,পর্ব-১

ব্যবসা বলতে আমরা সাধারনত বুঝি কোন একটা বস্তু বা বিষয়ের উপর কাজ করা এবং তা সাধারন মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া।তবে ব্যবসা কি আসলেই তাই!অথবা বলা যায় ব্যবসা কি খুব সহজ কিছু?এই প্রশ্নের উত্তর দিতে হলে বলতে হয় অবশ্যই না,ব্যবসা অনেক জটিল এবং এর সাথে বিভিন্ন বিষয় জড়িত।অনেকেই ব্যবসা শুরু করতে চান,তবে সঠিক ধারনা না থাকার ফলে ব্যবসা শুরু করতে পারছেন না।আবার অনেকে ব্যবসা করেছেন তবে কিভাবে করতে হয় বা কি কি বিষয়ে জোর দিতে হয় সে সম্পর্কে ধারনা না থাকার ফলে ব্যবসায় লোকসান হয়েছে। ব্যবসায়ের সকল বিষয় নিয়েই এবারের পর্ব।যার মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ব্যবসায়ের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে এবং আপনার একটি ব্যবসা দাঁড় করাতে কিধরনের বিষয়ের উপর জোর দিতে হবে।এই সকল বিষয় নিয়ে বিস্তারিত দশটি পর্ব করা হবে।আশা করি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরতে পারবো।তাহলে আজ ব্যবসায়ের সূচনা দিয়ে শুরু করা যাক।চলুন... ব্যবসা শুরু করার প্রথমেই যে বিষয়টি মাথায় আসে তা হল উদ্যোগ।অর্থাৎ,আপনি যে ধারনা বা আইডিয়া নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছেন তার জন্য আপনাকে উদ্যোগ নিতে হবে এবং আপনাকে উদ্যোক্তার ভূমিকা পালন করতে হবে।অবশ্যই প্রথম প্রথম আপনাকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে এবং ধৈর্য ধরতে হবে।কারন আপনার বিজনেস ধারনা হয়ত অনেকের পছন্দ না হতেও পারে।প্রথমে আপনাকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিফল হতে,হতে পারে।তবে মনে রাখবেন বিফলতার পরেই আসে সফলতা,তাই সব সময় নিজেকে প্রস্তুত রাখতে হবে। ব্যবসার ধরন আমরা সবাই জানি ব্যবসা কি বা কেন করা হয়।কিন্তু ব্যবসার ধরন সম্পর্কে কি জানি!না জানি না,শুধু জানি ব্যবসা ছোট হয় আবার বড় হয়,খুচরা হয় পাইকারি হয়।কিন্তু এরপরও যে আরও কিছু আছে এবং সময়ের সাথে ব্যবসার ধরন বদলেছে সে সম্পর্কে আমাদের ধারনা অনেকটাই কম। বর্তমানে উন্নত প্রযুক্তি এবং বিজ্ঞানের কল্যাণে ব্যবসার অনেকগুলো খাত তৈরি হয়েছে।সাধারনত ব্যবসা করার ক্ষেত্রে সবাই চিন্তা করে আগে ছোট ব্যবসার মাধ্যমে শুরু করবো।এরপর আস্তে আস্তে ব্যবসার পরিধি বাড়াবো।অবশ্যই এটা খুব ভালো চিন্তা।তবে অবশ্যই আপনার ব্যবসার লাইন আপনাকে ঠিক রাখতে হবে।যেমন ছোট ব্যবসা যখন শুরু করবেন তখন আপনাকে ঠিক করে নিতে হবে কোন খাতে ব্যবসা করবেন।সঠিক পার্টনার বাছাই করতে হবে এবং অবশ্যই আপনার গোল ঠিক রাখতে হবে।আপনি যদি বার বার নতুন আইডিয়া নিয়ে আসেন তাহলে কোন ক্ষেত্রেই আপনি কাজ করতে পারবেন না।তাই আপনাকে আইডিয়া করার সময় খুব ভেবে চিন্তে করতে হবে। অনেকে বাসায় বসে ব্যবসা করতে চায়।একটা সময় ছিল যখন বাসায় বসে ব্যবসা প্রায় অনেকটা অসম্ভব ছিল।তবে বর্তমানে ইন্টারনেটের বদৌলতে তা অনেকটাই সম্ভব হয়েছে।এখন অনেকেই বিভিন্ন প্রয়োজনীয় উপাদান সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিক্রি করে থাকছেন।আপনি আপনার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমটি খুললেই দেখতে পাবেন,অনেকে বিভিন্ন গ্রুপ বা পেজ খুলে কাপড়,প্রসাধনী,প্রয়োজনীয় ব্যবহার্য জিনিস বিক্রি করছেন।অনেকে চাইলে এধরনের ব্যবসাগুলোতেও বিনিয়োগ করতে পারবেন।ব্যবসা করার আগে আপনাকে আগে ঠিক করতে হবে আপনি কোন খাতে বিনিয়োগ করবেন এবং একটা দিক নির্বাচন করে নিতে হবে। ব্যবসার আইডিয়া ব্যবসার আইডিয়া অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।আপনাকে ব্যবসার আইডিয়া নিতে হবে আপনার আশে পাশের থেকে।মানুষ কি বেশি ব্যবহার করছে,কোন ধরনের জিনিস বাজারে বেশি চলে,কি ধরনের খাবার মানুষের বেশি পছন্দ।এই সকল বিষয় আপনাকে মাথায় রেখে আইডিয়া করতে হবেযে আপনি কোন ধরনের আইডিয়া কাজে লাগাবেন এবং আপনার আইডিয়া যদি একদম নতুন হয় বা পুরোনো আইডিয়ার সাথে নতুনের মিশ্রন থাকে তাহলে আপনার ব্যবসায় মানুষের আগ্রহ বাড়বে।আপনি যদি নতুন সকল বিষয় আপনার ব্যবসার সাথে যুক্ত করেন এতে মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় জিনিস আপনার কাছ থেকেই নিবে।এমন হল আপনি আপনার মহল্লায় একটি দোকান দিলেন।এখন আপনার কাজ হল আপনার মহল্লার প্রতিটি দোকান দেখা,যে কি কি পাওয়া যায়।আপনি তখন আপনার দোকানে যা সকল দোকানে তা তো রাখবেনই সাথে রাখবেন যা মহল্লার অন্য সকল দোকানে পাওয়া যায় না।তাহলে দেখবেন মহল্লার সবাই দূরে না গিয়ে প্রথমে আপনার দোকানেই খোঁজ করবে।ব্যবসার এই পদ্ধতিগুলো প্রাচীন যুগ থেকে চলে আসছে।আপনি যদি এই পদ্ধতিগুলো নিজের ব্যবসার ক্ষেত্রে কাজে লাগান তাহলে আপনার ব্যবসা সফল হবে খুব সহজে এবং দ্রুত।আপনার সঠিক আইডিয়া আপনাকে নিয়ে যেতে পারে অনেক দূরে।পাশাপাশি আপনার নতুন চিন্তা ভাবনা ব্যবসাএর প্রতি নিদারুণ মনোযোগ আপনার ব্যবসায়ের উন্নতির মূল হাতিয়ার হবে। বাজার যাচাই,স্থান নির্বাচন সবই আইডিয়ার অন্তর্ভুক্ত যা নিয়ে আমরা এখন আলোচনা করবো।  বাজার যাচাই ব্যবসায়ের দ্বিতীয় ধারা হল বাজার যাচাই।আপনি মন থেকে একদম ঠিক করে নিলেন আপনি হোটেল ব্যবসা করবেন।এখন আপনার কাজ হল টানা এক মাস বাজার যাচাই করা।একটা হোটেল কিভাবে চলে,কি ধরনের কাস্টমার বেশি আসে,কোন ধরনের খাবার বেশি চলে এবং কোন ধরনের খাবার প্রতিদিন রাখতে হয়।অর্থাৎ,আপনার ব্যবসার সকল বিষয় আপনাকে বাজার যাচাই করতে হবে,কাচাঁমাল থেকে শুরু করে উপযোগী সকল কিছু।বাজার যাচাই এর মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ব্যবসায়ের মূলধন অনুযায়ী আপনি কতটা দাঁড় করাতে পারবেন। স্থান নির্বাচন ব্যবসার ক্ষেত্রে স্থান নির্বাচন খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।যদি আপনি হোটেলের ব্যবসা চালু করে থাকেন।তাহলে অবশ্যই আপনাকে এমন স্থান নির্বাচন করতে হবে,যেখানে মানুষ খুব সহজে যাওয়া আসা করতে পারবে এবং আপনার হোটেলকে দেখা যাবে,যেখানে মানুষের সমাগম বেশি সেরকম স্থান নির্বাচন করতে হবে।আবার যারা অনলাইন ব্যবসা করবেন তারা প্রশ্ন করতে পারেন।অনলাইনে কি স্থান নির্বাচন বলে কিছু আছে?তাহলে বলবো অবশ্যই আছে।আপনি অনলাইনের কোন মাধ্যমে ব্যবসা করবেন তা আপনাকে খুব ভালো করে বুঝতে হবে।আপনি সামাজিক যোগাযোগের কোন মাধ্যমে ব্যবসা চালু করবেন তা যদি আপনি বুঝতে বা নির্বাচন না করতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনার ব্যবসার লাল বাতি জ্বলতে পারে।আপনাকে বুঝতে হবে সামাজিক যোগাযোগে কোন স্থানে মানুষ এই বিষয়গুলো লক্ষ্য করে এবং ব্যবসা খুব ভালো চলে।আপনি যদি একবার পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে বুঝতে পারেন তাহলে আপনি খুব সহজে ব্যবসায় লাভ করতে পারবেন। প্রচার যেকোন ক্ষেত্রেই আপনি যদি প্রচার না করেন তাহলে কেউ জানবে না।তাই আপনাকে যা করতে হবে তা হল প্রচার।আপনি যে ব্যবসাই করে থাকেন না কেন আপনাকে প্রচার করতে হবে।মনে হতে পারে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে এত জানানোর কি আছে।কিন্তু আপনি যদি না জানান তাহলে যে আপনার এত সাধের ব্যবসা হবে না,তা তো আপনাকে মাথায় রাখতে হবে।তাই প্রচার করতে হবে।হতে পারে তা আপনার বন্ধু-বান্ধবের মাধ্যমে অথবা আত্নীয়-স্বজনের মাধ্যমে।আপনার ব্যবসা দেখতে আসার জন্য আমন্ত্রন জানান আপনার পরিচিত মানুষজনকে।ব্যবসা দাঁড় করিয়ে পরিচিত বন্ধুদের জানান।এতে করে তারা তাদের প্রয়োজন সাথে তাদের পরিচিত জনের প্রয়োজনে আপনার কথাই সবার প্রথমে মনে করবে।তাই প্রচার কাজ আপনাকে চালিয়ে যাওয়া উচিত ব্যবসার প্রথম পর্যায়ে। ব্যবসার প্রথমে এই কাজগুলো আপনাকে আপনার ব্যবসা এগিয়ে নিতে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করবে।আপনার ব্যবসায়ের জন্য কি ভালো হবে বা কিধরনের ট্রিক্স অবলম্বন করা উচিত তা আমরা পরের পর্বে বিস্তারিত জানাবো।তাই আজ এ পর্যন্তই। চলবে...


bottom of page